যে কারনে আবু ত্ব-হা সহ সবার মোবাইল বন্ধ ছিল

রংপুর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)জানিয়েছে ইসলামীক তরুন বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান ব্যাক্তিগত কারনে স্ব ইচ্ছায় আত্মগোপনে থাকা অবস্থাতে নিজের ফোন সুইচ অফ করার পর তার দেয়া নির্দেশেই সফরের সঙ্গী ৩ জনের ব্যবহৃত মোবাইল বন্ধ রাখা হয়েছে।

আবু ত্ব-হা দাম্পত্য কলহের কারণে স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন। আজ শুক্রবার প্রেস ব্রিফিং শেষে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার আবু মারুফ হোসেন এই কথা জানান।

আবু মারুফ হোসেন আরো বলেন যে আবু ত্ব-হা নিরুদ্দেশ হবার ঘটনায় তার মা রংপুর থানায় একটি জিডি করেন এবং আবু ত্ব-হা”র সাথে নিখোঁজ থাকা আমিরুদ্দিনের ভাই ফয়সালের পক্ষ থেকে অপর একটি জিডি করার পর থেকে পুলিশের তরফ থেকে তাদের খোঁজার জন্য বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো ও বিভিন্ন উপায়ে তদন্তও করার পর আজ আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি, ত্ব-হা রংপুর নগরের আবহাওয়া অফিসের পাশে তার প্রথম স্ত্রীর বাড়িতে আছেন। এরপর সুত্র মতে সেখান থেকে মুহাম্মদ আদনানকে পুলিশি হেফাজতে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

উক্ত কথার পরে মারুফ হোসেন আরো বলেন গত ১০ জুন বৃহস্পতিবার রংপুর থেকে একটি প্রাইভেটকার ভাড়া করে ঢাকার পথে রওনা হয়েছিলেন আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও আব্দুল মুহিত, ফিরোজ আলম ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন। ঢাকা যাওয়ার সময় ত্ব-হা তার সফরসঙ্গীদের তার ব্যক্তিগত সমস্যার কথা খুলে বলেন এবং ঢাকার গাবতলীতে পৌঁছান এরপর তারা পরামর্শ করে আত্মগোপনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে সেখান থেকে সবাই গাইবান্ধা জেলার ত্রিমোহনীতে চলে যান। সেখানে আদনানের পূর্ব থেকেই চেনা তার বন্ধু সিয়ামের বাড়িতে তার তিন সহযোগী সহ তিনি অবস্থান করছিলেন।

আসলে পারিবারিক ও ব্যক্তিগত বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনে ত্ব-হার কথায় রাজি হয়ে তারা ৪ জনেই স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন এবং ওই বাড়িতে অবস্থানকালে ত্ব-হার ইচ্ছাতেই সবাই তাদের ব্যবহার কৃত মোবাইল ফোন বন্ধ রাখেন।
তাদের দাবি মতে এই আত্মগোপনে থাকার সিদ্ধান্তের মাঝে রাষ্ট্র বা সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতে ফেলার কোনো ষড়যন্ত্র আছে কি-না তাও তদন্ত করে দেখবে পুলিশ।

ডিবি কতৃক করা সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আবু ত্ব-হা ও আমির উদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তারা প্রথমে আত্মগোপনে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন। তারা এখন পুলিশ হেফাজতেই আছেন। অন্য বাকি দুইজনের মধ্যে মিঠাপুকুরের জায়গীরহাট থেকে আব্দুল মুহিতকে এবং ফিরোজ আলমকে বগুড়ার শিবগঞ্জ থেকে পুলিশের হেফাজতে নেওয়ার জন্য প্রস্তুতি চালানো হচ্ছে বলে জানানো হয়।

আবু ত্ব-হার উদ্ধৃতি টেনে উপ-পুলিশ কমিশনার বলেন, ত্ব-হা আমাদের ব্যক্তিগত কিছু সমস্যার কথা জানালে আমরা তার কথা গুলো যাচাই-বাছাই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা তাকে আজ রাতে রংপুরের কোতোয়ালি থানায় সোপর্দ করব। এই মুহূর্তে তার নিজের ব্যক্তিগত বিষয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি না তবে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

আজ শুক্রবার দুপুর ২টায় আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের পরিবার থেকে তার ফিরে আসার কথা জানানোর পর দুপুর পৌনে ৩টার দিকে নগরীর বাবুখা মাস্টারপাড়া এলাকার আজহারুল ইসলাম মণ্ডলের বাড়ি থেকে আবু ত্ব-হাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কোতয়ালী থানায় এবং পরে সেখান থেকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে।

About admin

Check Also

ব্যারিস্টার সুমনকে যুবলীগের পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি

বিভিন্ন সময়ে নিজ এলাকার কিংবা রাস্তা খাল সহ নানান সমস্যা নিয়ে ফেসবুক লাইভে এসে আলোচনা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *