আদালতে আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও তার সহকর্মীরা

ইসলামিক বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও তার সহকর্মী আব্দুল মুহিত সহ গাড়ি ড্রাইভার আমির উদ্দিনের জবানবন্দি গ্রহণ করার লক্ষে রংপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হয়েছে।

উক্ত জবানবন্দি দেয়া শেষে তাদের সবাইকে স্ব স্ব জিম্মায় বাড়ি যাওয়ার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

শুক্রবার দুপুরে মোহাম্মদ আদনান বাড়ি ফিরে আসার খবর পেয়ে থানার ওসি এসে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় নেয়ার পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে প্রেস ব্রিফ করে জানানো হয় আদনান ও তার সঙীরা ব্যাক্তিগত পারিবারিক কারনে নিরুদ্দেশ হয়ে গেছিলেন এই তথ্য প্রকাশ করেন রংপুর গোয়েন্দা পুলিশ।

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এদেরকে আদালতে তোলা হলে এক পর্যায়ে কোতোয়ালি আমলী আদালতের বিচারক কে এম হাফিজুর রহমান তাদেরকে নিজ জিম্মায় বাড়িতে পাঠানোর আদেশ দেন।

উল্লেখ্য, জুনের গত ১০ তারিখ দিবাগত রাতে রংপুর থেকে ঢাকায় আসার পর থেকে কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না এই বক্তা ও তার সঙীদের, নিরুদ্দেশ হওয়ার ৮ দিন পর গতকাল শুক্রবার নামাজের পরে হটাৎ করেই সফরসঙ্গী আব্দুল মুহিত ও মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিনকে নিয়ে রংপুর মাষ্টারপাড়ার প্রথম স্ত্রী’র বাসায় উঠেন ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান।

এই সময়ে আদনান কেবল কিছুটা পানি খেয়ে বিশ্রামের সময় কোনো এক সংবাদের ভিত্তিতে আদনানের বাসায় কোতোয়ালি থানা থেকে পুলিশ এসে সঙী সহ সবাইকে জিজ্ঞাবাদ করার উদ্দেশ্যে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

কিছুক্ষন থানায় রেখে কথাবার্তার পরে তাদের পাঠানো হয় রংপুর মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা কার্যালয়ে।
ডিবি কার্যালয় থেকে রাতেই আদনান ও তার সাথীদের তোলা হয় আদালতে।

বর্তমানে আদনান ও তার সাথে নিখোঁজ হওয়া সাথীরা নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে।

ঘটনা সুত্রে জানা যায় নিখোঁজ হওয়ার দিন ৪ জন রংপুর থেকে ভাড়াকৃত গাড়ি নিয়ে ঢাকার পথে রওয়ানা হয়ে রাতে তার মায়ের সাথে কথা বলার সময় তার যাত্রার শেষ স্থান সাভার বলে জানানো হয়, এই ঘটনার পর মোবাইল বন্ধ থাকা এবং খোঁজ না পাওয়ার কারনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সন্ধান চাওয়ার হিড়িক পরে যায় এবং পারিবারিক ভাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয় বলে দেখা গেছে।

About admin

Check Also

রাজধানীতে লকডাউন চিত্র জরিমানা ও আটক

রাজধানীতে লকডাউন চিত্র জরিমানা ও আটক করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি আদেশ মোতাবেক শুরু হওয়া সর্বাত্মক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *